ম্যাচিং ড্রেসিং

পোশাক আর ত্বকের রঙের সঙ্গে ম্যাচ করে লিপস্টিক পরতে হয়। ঠোঁটের আবেদনকে সৌন্দর্যের যথাযথ অংশ করে তোলার জন্য

লিপস্টিক। মেকআপের বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। বেশির ভাগ সৌন্দর্যপ্রেমীই পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে লিপস্টিক পরতে ভালোবাসেন। এটি বেশ ক্ল্যাসিক ও ট্রেন্ডি মেকআপ ট্রিকস। এ ছাড়া পোশাকের সঙ্গে মানানসই লিপস্টিক কালার বেছে নেওয়ার চেয়ে ম্যাচিং লিপস্টিক পরে নেওয়াটা বেশ নিরাপদ। কেননা অনেকেই বুঝে উঠতে পারেন না কোন রঙের পোশাকের সঙ্গে কোন লিপস্টিক ভালো মানাবে।
ব্যাপারটা ঠিক এমন নয় যে কীভাবে আউটফিটের সঙ্গে লিপস্টিক ম্যাচ করে নেবেন। তবে কৌশলটি নিশ্চিত করবে কীভাবে সহজে একই রঙে ঠোঁটজোড়া রাঙিয়ে লুকে নতুনত্ব সৃষ্টি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে এমা স্টোনের সাম্প্রতিক বিউটি লুক অনুসরণযোগ্য হয়ে উঠেছে, যা হলিডে আউটিংয়ের জন্য বেশ জুতসই।
ব্রিটিশ ইনডিপেনডেন্ট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে এমা স্টোন উপস্থিত হয়েছিলেন চমৎকার লুকে। এখানে বিকেলের অনুষ্ঠানে তার রেড কার্পেট আউটফিটের উল্লেখ না করলেই নয়। তার লুক প্লেফুলনেস ও ফেস্টিভ স্টাইলের মধ্যে ঠিকঠাক ব্যালেন্স করে নিয়েছে। লুই ভিতোঁর নকশায় তৈরি কস্টিউমের সঙ্গে তাঁরই ডিজাইন করা পাম্প শু, ঝলমলে দুল আর ম্যাচ করা মেটালিক বক্স ক্ল্যাচ নিয়ে বেশ প্রাণবন্ত উপস্থিতি ছিল এমার। অ্যাকসেসরিজই তাকে উচ্চকিত করলেও আসল চমক ছিল তার মেকআপে। গোল্ড হাইলাইটেড মেকআপের সঙ্গে প্রগাঢ় লাল লিপস্টিক, যা তার লাল পোশাকের সঙ্গে পুরোপুরি মিলে গিয়েছিল। এই সহজ সৌন্দর্যকৌশল সবারই দৃষ্টি টেনে নেয়।
পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে কিংবা অমিল রেখে লিপস্টিক পরে নেওয়া সব ক্ষেত্রেই একটি বিউটি ট্রিকস। এটি টাইমলেস বিউটি ট্রেন্ডও বটে। এ ক্ষেত্রে লাল রঙটি বহুল ব্যবহৃত। এর রয়েছে একটি ভাইব্রেন্সি লুক, যা সবাই পছন্দ করেন। লালে রঙিন ঠোঁটজোড়া দিতে পারে ক্ল্যাসিক লুক; কিন্তু এটি আবার স্কিন টোনের সঙ্গে সাংঘর্ষিকও হতে পারে, যদি বোঝার চোখ না থাকে। চেষ্টা করুন লালেরই জুতসই শেডটি খুঁজে নিতে, যা দেহত্বক ও পোশাকের রঙের সঙ্গে মানানসই। এতেই হয়ে উঠবেন অতুলনীয়।
প্রগাঢ় পোশাক পরতে চাইলে এর সঙ্গে স্বাভাবিকভাবেই গাঢ় লিপস্টিকই পরার কথা। কিন্তু এ বিষয়ে বেশ সতর্ক থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে গাঢ় রঙের আন্ডারটোনগুলো ক্ল্যাশ করবে না বা বেমানান দেখাবে না। তাই অনায়াসেই গাঢ় রঙে মেতে উঠতে পারেন, সঙ্গে একই রঙা লিপস্টিক নিয়ে। শুধু খেয়াল রাখবেন, যেন ত্বকের সঙ্গে এটি মানানসই হয়। যেমন ওয়ার্ম রেড বা অরেঞ্জি আন্ডারটোনের লিপস্টিক কমলা রঙের পোশাকের সঙ্গে চমৎকার মানিয়ে যায়। যাদের গায়ের রঙ একটু চাপা, তারাও রঙটি স্বচ্ছন্দে পরে নিতে পারেন। শ্যাম কিংবা কালো ত্বক বলে অনেকেই পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে সব সময় লিপস্টিক পরতে চান না। কেননা তারা মনে করেন, সব রঙ তাদের মানায় না। বিশেষত লাল কিংবা মেরুন। তাদের জন্য চেরি রেড লিপস্টিক হতে পারে জুতসই একটি রঙ। লাল পোশাকের সঙ্গে এটি বেশ ভালোভাবে মানিয়ে যাবে গাঢ় ত্বকের যে কাউকেই। বেছে নিতে পারেন টম ফোর্ড বিউটি লিপ কালারের চেরি লাশ। এটি বেশ হাইড্রেটিং, রঙিন ও লং লাস্টিং, যা ঠোঁটে যোগ করবে সত্যিকারের উজ্জ্বলতা। কোনো রকম চকচকে ভাব ছাড়াই।
যে কারোরই সংগ্রহে থাকা একটি রঙ গোলাপি। প্রায় সব নারীকেই এটি মানিয়ে যায়। এর সঙ্গে লিপ কালারটিও মেলানো যায় সহজেই। গোলাপির মোহনীয় সব শেড লুকে বেশ নমনীয় ভাব ফুটিয়ে তোলে। আর গোলাপির সঙ্গে অন্য কোনো রঙের কম্বিনেশনে না যাওয়াই ভালো। ঠিক গোলাপিই এতে মানায়। চেহারায় কোমলতা যোগ করতে এটি বেশ বিশ্বস্ত একটি রঙ।
পুরো লুকে চেঞ্জ আনতে চাইলে ডার্ক লিপস্টিকের বিকল্প আর কিছুতে হতে পারে না। এ ক্ষেত্রে ঠিকমতো লিপস্টিক লাগানোটা জরুরি। অনেকেই আছেন, গাঢ় লিপস্টিক পরার ইচ্ছা শতভাগ থাকলেও আত্মবিশ্বাসের অভাবে পরতে পারেন না। অথচ গর্জাস ইমপ্যাক্টফুল বিউটি লুক তৈরির জন্য একটি বোল্ড স্টেটমেন্ট লিপ হতে পারে কার্যকর উপায়।
হয়তো আরও বেশি আবেদনময় হয়ে উঠতে পারেন রেড, মেরুন ও ম্যান্ডারিনের মতো প্লেফুল সব ব্রাইট শেডে; কিন্তু তাই বলে কালো লিপস্টিক? এটি সহজেই অনুমেয় যে, কেন হ্যালোইনের জন্য নির্ধারিত একটি রঙ নিয়ে আপনি নিরীক্ষা করতে দ্বিধা করছেন। সৌন্দর্যের দুনিয়ায় বাস্তবতা হলো, এটাই হালের লিপস্টিক ট্রেন্ড।
ব্ল্যাক লিপস্টিক ঠোঁটে দেয় ব্যতিক্রমী লুক। ফলে তা হয়ে ওঠে চিত্তাকর্ষক। এই সম্মোহনী ব্ল্যাক বা ডার্ক লিপস্টিক পরার আগে কিছু বিষয় মনে রাখা জরুরি।
আগে ঠোঁট দুটিকে তৈরি করে নিন। এমন লিপস্টিক বেছে নিন, যা খুবই পিগমেন্টেড। লাগানোর পর একই কালারের লিপলাইনার দিয়ে খুঁতগুলো ঢেকে নিতে ভুলবেন না। ব্ল্যাক বা ডার্ক লিপস্টিক ম্যাট দেখতেই ভালো লাগে। তাই গ্লস ব্যবহার না করাই ভালো। আরেকটি বিষয় না বললেই নয়, এই লিপস্টিকের সঙ্গে পুরো মেকআপ লুকটা বোল্ড না রেখে সফট রাখাটাই ভালো। এতে লিপস্টিক আরও ভালোভাবে ফুটে উঠবে। তাই চেষ্টা করুন বাকি সাজ মিনিমাল রেখে সফট একটা লুক তৈরি করার। সবশেষে মনে রাখবেন, ডার্ক লিপস্টিক নিয়ে অন্যরা কী ভাবছে, সে চিন্তা না করে নিজের প্রতি আস্থা রাখা জরুরি।
পোশাকের সঙ্গে ম্যাচিং লিপস্টিক যে মোটেও ব্যাকডেটেড নয়, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

Share your vote!


Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid
Facebook Comment